ধ্বনি ও ধ্বনি পরিবর্তন

বাংলা ভাষা বা গ্রামার
Content Protection by DMCA.com

বিসিএস ও ব্যাংক প্রস্তুতি
বাংলা ভাষা বা গ্রামার
ধ্বনি ও ধ্বনি পরিবর্তন

ধ্বনি ও ধ্বনির পরিবর্তন সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা:

ধ্বনি — মানুষের সঙ্গে মানুষের ভাব বিনিময়ের জন্য যেসব অর্থ যুক্ত শব্দ বাগযন্ত্রের সাহায্যে উচ্চারণ করা হয় সেইসব শব্দের ক্ষুদ্রতম অংশকে বলা হয় ধ্বনি । যেমন— ভারত > ভ + আ + র + ত = ৪টি ধ্বনি । কুল > ক + উ + ল = ৩টি ধ্বনি । ধ্বনি দু-প্রকার যথা — (১) স্বরধ্বনি ও  (২) ব্যঞ্জনধ্বনি ।

বর্ণ — ধ্বনির লিখিত রূপকে বর্ণ বলে । লিখিত চিহ্ন বা প্রতীক হলো বর্ণ, যেমন— স্বরবর্ণ ও ব্যঞ্জনবর্ণ । বর্ণ দেখা যায় কিন্তু ধ্বনি কানে শোনা যায় ।

(১) স্বরধ্বনি / স্বরবর্ণ — যে ধ্বনিগুলো বাকযন্ত্রের কোথাও বাধা না পেয়ে উচ্চারিত হয় সেগুলিকে বলা হয় স্বরধ্বনি । এই ধ্বনির লিখিত রূপকে বলা হয় স্বরবর্ণ । বাংলা ব্যাকরণে স্বরবর্ণের সংখ্যা হল ১১টি । অ, আ, ই, ঈ, উ, ঊ, ঋ, এ, ঐ, ও, ঔ । বাংলায় ঌ -কারের ব্যবহার নেই ।

ধ্বনির শ্রেণিবিভাগ— উচ্চারণের তারতম্যের জন্য স্বর ধ্বনিগুলোকে দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছে । (১) হ্রস্ব স্বরধ্বনি ও (২) দীর্ঘ স্বরধ্বনি ।

হ্রস্ব স্বরধ্বনি— যে স্বরধ্বনি উচ্চারণ করতে কম সময় লাগে তাকে হ্রস্ব স্বরধ্বনি বলে । যেমন— অ, ই, উ, ঋ ।

দীর্ঘ স্বরধ্বনি— যে স্বরধ্বনি উচ্চারণ করতে বেশি সময় লাগে সেগুলোকে দীর্ঘ স্বরধ্বনি বলে । যেমন— আ, ঈ, এ, ঐ, ও, ঔ ।

* গঠনগত দিক থেকে স্বরধ্বনিকে দুই ভাগে ভাগ করা হয় । যেমন— (১) মৌলিক স্বরধ্বনি ও  (২) যৌগিক স্বরধ্বনি ।

মৌলিক স্বরধ্বনি— যে ধ্বনিগুলোকে বিশ্লেষণ করা যায় না তাদেরকে মৌলিক স্বরধ্বনি বলে । যেমন—অ, আ, ই, উ,এ, ও,অ্যা ।

যৌগিক স্বরধ্বনি— যে ধ্বনিগুলোকে বিশ্লেষণ করা যায় তাদেরকে যৌগিক স্বরধ্বনি বলে । যেমন— ঐ (অ+ই),,ঔ (অ+উ) । এইজন্য যৌগিক স্বরকে আবার সন্ধ্যক্ষর, যুগ্ম স্বর বা দ্বিস্বর বলা হয় ।

প্লুতস্বর— কান্নার সময়, গানের সময় বা দূর থেকে কাউকে ডাকার সময় কোনো স্বরধ্বনিকে টেনে টেনে উচ্চারণ করা হয় তখন ঐ প্রলম্বিত স্বরকে প্লুতস্বর বলে । যেমন— “আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি ……….ই ” । যদু হে ……… এ ।

* জিহবার অবস্থান অনুযায়ী স্বরধ্বনির শ্রেণীবিভাগ । যেমন — (১) সম্মুখস্থ বা প্রসারিত স্বরধ্বনি, (২) পশ্চাৎ ভাগস্থ স্বরধ্বনি, (৩) কুঞ্চিত স্বরধ্বনি, (৪) সংবৃত স্বরধ্বনি, (৫) বিবৃত স্বরধ্বনি, (৬)

(১) সম্মুখস্থ বা প্রসারিত স্বরধ্বনি (Refracted vowel) — যে স্বরধ্বনি উচ্চারণের সময় জিহ্বা সামনে এগিয়ে আসে তাকে সম্মুখস্থ বা প্রসারিত স্বরধ্বনি বলে । যেমন— ই, এ, অ্যা ।

(২) পশ্চাৎ ভাগস্থ স্বরধ্বনি— যে স্বরধ্বনি উচ্চারণের সময় জিহ্বা পিছনে পিছিয়ে যায় তাকে পশ্চাৎ ভাগস্থ স্বরধ্বনি  বলে । যেমন— উ, ও. অ ।

(৩) কুঞ্চিত স্বরধ্বনি (Rounded vowel) — যে স্বর ধ্বনিগুলো উচ্চারণের সময় ঠোঁট দুটি গোলাকার কুঞ্চিত হয় তাকে কুঞ্চিত স্বরধ্বনি বলা হয় । যেমন— অ, উ, ও ।

(৪) সংবৃত স্বরধ্বনি (Closed vowel) — যে স্বর ধ্বনিগুলো উচ্চারণের সময় সবচেয়ে কম প্রসারিত ও উন্মুক্ত হয় তাদেরকে সংবৃত স্বরধ্বনি বলে । যেমন— ই, উ, ।

(৫) বিবৃত স্বরধ্বনি (open vowel)  — যেসব স্বরধ্বনি উচ্চারণের সময় মুখদ্বার পুরোপুরি প্রসারিত হয়, সেসব স্বর ধ্বনিগুলিকে বিবৃত স্বরধ্বনি বলে । যেমন— আ  ।

* উচ্চারণ স্থান অনুযায়ী শ্রেণীবিভাগ । যেমন —  (১) কণ্ঠধ্বনি, (২) তালব্য ধ্বনি, (৩) ওষ্ঠ ধ্বনি, (৪) কন্ঠ তালব্য ধ্বনি, (৫) কান্ঠ্যোষ্ট ধ্বনি, (৬) মূর্ধন্য ধ্বনি ।

(১) অ , আ → কণ্ঠধ্বনি ( কণ্ঠের সাহায্যে উচ্চারিত হয় বলে )
(২) ই, ঈ → তালব্য ধ্বনি ( তালুর সাহায্যে উচ্চারিত হয় বলে )
(৩) উ, ঊ → ওষ্ঠ ধ্বনি ( ওষ্টের সাহায্যে উচ্চারিত হয় বলে )
(৪) এ, ঐ → কন্ঠ তালব্য ধ্বনি ( কন্ঠ ও তালুর সাহায্যে উচ্চারিত হয় বলে )
(৫) ও, ঔ → কন্ঠ্যোষ্ঠ ধ্বনি ( কন্ঠ ও ওষ্ঠের সাহায্যে উচ্চারিত হয় বলে )
(৬) ঋ → মূর্ধন্য ধ্বনি ( মূর্ধার সাহায্যে উচ্চারিত হয় বলে )

বিভিন্ন স্বরধ্বনির উচ্চারণরীতি / বৈশিষ্ট্

অ — বাংলা ভাষায় অ-কারের দুই রকম উচ্চারণরীতি রয়েছে । যথা — (১) স্বাভাবিক রীতি ও (২) অস্বাভাবিক বা বিকৃত রীতি ।

(১) স্বাভাবিক রীতি — যেমন, অসীম, অসুখ, সরল, দখল, জল, ফল ইত্যাদি ।

(২) অস্বাভাবিক বা বিকৃত রীতি — যেমন – অতুল > ওতুল, সবিনয়, সস্ত্রীক, সশিষ্য ইত্যাদি । যদি > যোদি, মধু > মোধু,  মন > মোন ইত্যাদি ।

আ — এটি দীর্ঘস্বর, স্বাভাবিক উচ্চারণ —বাবা, কাকা, মামা ।

ই, ঈ — দুটির উচ্চারণ স্বাভাবিক ।

উ, ঊ — দুটির উচ্চারণ স্বাভাবিক ।

ঋ — স্বাভাবিক বৈশিষ্ট্য – ঋষি, বৃষ্টি,

এ — (১) স্বাভাবিক উচ্ছারণ — একদা, মেঘ, স্নেহ, প্রেম ইত্যাদি ।

(২) বিকৃত উচ্চারণ — নেড়া > ন্যাড়া,  বেলা > ব্যালা, বেটা > ব্যাটা । এখানে ‘এ্যা’ কার হয়ে যায় ।

ও — স্বাভাবিক উচ্চারণ — রোগা, যোগী, ভোগী ইত্যাদি ।

ঐ — যৌগিক ধ্বনি — দৈন্য, চৈতন্য ইত্যাদি ।

ঔ — যৌগিক ধ্বনি — মৌমাছি, সৌরভ ইত্যাদি

ব্যঞ্জন ধ্বনির শ্রেণিবিভাগ ও উচ্চারণ রীতি

ব্যঞ্জনধ্বনি কি ? — যেসব ধ্বনি স্বরধ্বনির সাহায্য নিয়ে উচ্চারণ করা হয় সেগুলিকে ব্যঞ্জনধ্বনি বলে । ব্যঞ্জন ধ্বনির লিখিত রূপ বা প্রতীককে ব্যঞ্জনবর্ণ বলে । ব্যঞ্জনধ্বনি ২৯টি কিন্তু ব্যঞ্জনবর্ণ ৩৯টি । ক,খ,গ,ঘ,ঙ,………………… ।

ব্যঞ্জনধ্বনিগুলিকে ৪টি ভাগে ভাগ করা হয়েছে । (১) স্পর্শধ্বনি, (২)  উষ্ম ধ্বনি, (৩) অন্তঃস্থ ধ্বনি, (৪) অযোগবাহ ধ্বনি ।

(১) স্পর্শব্যঞ্জনধ্বনি — ক থেকে ম পর্যন্ত মোট ২৫টি ধ্বনিকে স্পর্শধ্বনি বলা হয় । কারণ এগুলি উচ্চারণের সময় বাগযন্ত্রের নানা অংশ যেমন —  কন্ঠ, তালু, মূর্ধা, দন্ত, ওষ্ঠ স্পর্শ করে উচ্চারণ করা হয় বলে এগুলিকে স্পর্শধ্বনি বলে । এই ধ্বনিগুলিকে বর্গীয় ধ্বনিও বলা হয় । পাঁচটি বর্গ হল —

ক-বর্গ — ক, খ, গ, ঘ, ঙ
চ-বর্গ — চ, ছ, জ, ঝ, ঞ
ট-বর্গ — ট, ঠ, ড, ঢ, ণ
ত-বর্গ — ত, থ, দ, ধ, ন
প-বর্গ — প, ফ,ব, ভ, ম

স্পর্শব্যাঞ্জনধ্বনি আবার ৪ প্রকার । যথা — (ক) ঘোষ ধ্বনি, (খ) অঘোষ ধ্বনি, (গ) অল্পপ্রাণ ধ্বনি, (ঘ) মহাপ্রাণ ধ্বনি ।

(ক) ঘোষ ধ্বনি — যে স্পর্শ ধ্বনি গুলি উচ্চারণের সময় ঘোষ অর্থাৎ কন্ঠস্বরে গাম্ভীর্যভাব থাকে সেগুলিকে ঘোষ ধ্বনি বলে । বর্গের তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম ধ্বনি অর্থাৎ গ-ঘ-ঙ, জ-ঝ-ঞ, ড-ঢ-ণ, দ-ধ-ন, ব-ভ-ম —হল ঘোষ ধ্বনি ।

(খ) অঘোষ ধ্বনি — যে স্পর্শধ্বনি গুলি উচ্চারণের সময় কণ্ঠস্বরে মৃদুভাব থাকে সেগুলিকে অঘোষধ্বনি বলে । বর্গের প্রথম ও দ্বিতীয় ধ্বনি অর্থাৎ ক-খ, চ-ছ, ট-ঠ, ত-থ, প-ফ —হল অঘোষ ধ্বনি ।

(গ) অল্পপ্রাণ ধ্বনি — বর্গের প্রথম ও তৃতীয় ধ্বনির উচ্চারণের সময় প্রাণ অর্থাৎ শ্বাসবায়ু জোরে বার হয় না বলে এদের অল্পপ্রাণ ধ্বনি বলে । ধ্বনি বা বর্ণগুলি হল — ক-গ, চ-জ, ট-ড, ত-দ, প-ব ।

(ঘ) মহাপ্রাণ ধ্বনি — বর্গের দ্বিতীয় ও চতুর্থ ধ্বনির উচ্চারণের সময় প্রাণ অর্থাৎ শ্বাসবায়ু জোরে বের হয় বলে এদের মহাপ্রাণ ধ্বনি বলে । এগুলি হল —খ-ঘ, ছ-ঝ, ঠ-ঢ, থ-ধ, ফ-ভ । এছাড়া হ -কেও মহাপ্রাণ ধ্বনি বলে ।

(২) উষ্ম ধ্বনি —যে ধ্বনি উচ্চারণের সময় উষ্ম অর্থাৎ শ্বাসবায়ুর উপর বেশি জোর দেয়া হয় সেই ধ্বনিগুলি হল উষ্ম ধ্বনি । এগুলি হল— শ, ষ, স, হ ।

(৩) অন্তঃস্থ ধ্বনি— য, র, ল, ব -এই ৪টি ধ্বনি স্পর্শধ্বনি ও উষ্মধ্বনির মধ্যে অবস্থান করে বলে এদের অন্তঃস্থ ধ্বনি বলে ।

(৪) অযোগবাহ ধ্বনি— ং, ঃ বর্ণ দুটিকে অযোগবাহ বর্ণ বা অযোগবাহ ধ্বনি বলে, কারণ এরা নিজে নিজে কোন শব্দ তৈরি করতে পারে না, অন্যের সঙ্গে যুক্ত হয়ে তবে উচ্চারিত হয় বলে এদের অযোগবাহ বলে ।

* পার্শ্বিক ব্যঞ্জন ধ্বনি :—’ল’ কে পার্শ্বিক ব্যঞ্জন ধ্বনি বলে ।

* তাড়নজাত ব্যঞ্জন ধ্বনি :— ড় এবং ঢ় কে তাড়নজাত ব্যঞ্জন ধ্বনি বলে । কারণ ধ্বনি দুটি উচ্চারণকালে জিভের অগ্রভাগ উলটে দিয়ে দন্তমূলে আঘাত করে । তাই এদের বলা হয় তাড়নজাত ব্যঞ্জন ধ্বনি ।

* কম্পনজাত ধ্বনি —র, ন, ল, – কে কম্পনজাত ধ্বনি বলে ।

* নাসিক্য ধ্বনি — ঙ, ঞ, ণ, ন, ম, ঁ ধ্বনি গুলি উচ্চারণের সময় শ্বাসবায়ু নাসিকার ভিতর দিয়ে নির্গত হয় বলে এদের নাসিক্য ধ্বনি বলে ।

ব্যঞ্জনধ্বনির উচ্চারণ স্থান —

ধ্বনিউচ্চারণ স্থানধ্বনির নাম
 ক,খ,গ,ঘ,ঙ,হ কন্ঠ কণ্ঠধ্বনি
 চ,ছ,জ,ঝ,ঞ,ষ,শ তালু তালব্য ধ্বনি
 ট,ঠ,ড,ঢ,ণ,র,ষ মূর্ধা মূর্ধন্য ধ্বনি
 ত,থ,দ,ধ,ন,ল,স দন্ত দন্ত্য ধ্বনি
 প,ফ,ব,ভ,ম ওষ্ঠ ওষ্ঠ্য ধ্বনি
 ঙ,ঞ,ণ,ন,ম নাসিকা নাসিক্য ধ্বনি

ধ্বনি পরিবর্তনের কারণ ও পরিবর্তনের বিভিন্ন রীতি— ধ্বনি পরিবর্তনের ক্ষেত্রে লক্ষ্য করা যায় যে, লেখার ভাষায় এই পরিবর্তন বেশি দেখা যায় না । মৌখিক ভাষায় এই পরিবর্তন বেশি লক্ষ্য করা যায় ।

বিভিন্ন কারণে ধ্বনি পরিবর্তন ঘটে । যেমন—(১) শ্রবণযন্ত্রের ত্রুটির কারণে, (২) জিহ্বার পরিশ্রম লাঘবের জন্য, (৩) উচ্চারণের অক্ষমতার জন্য, (৪) অন্যমনস্কতার কারণে, (৫) বিদেশি ভাষার প্রভাব জনিত কারণে ধ্বনি পরিবর্তন ঘটে ।

* ধ্বনি পরিবর্তন দু’রকমের, যথা — (১) স্বরধ্বনি ঘটিত ধ্বনি পরিবর্তন ও (২) ব্যঞ্জন ঘটিত ধ্বনি পরিবর্তন ।

আবার (১) স্বরধ্বনি ঘটিত ধ্বনি পরিবর্তন বিভিন্ন রকমের —

(ক) স্বরাগম— কোনো কোনো শব্দের উচ্চারণের সময় অসাবধানতাবশত বা জিহ্বার কষ্ট লাঘবের জন্য শব্দের আদিতে, মধ্যে ও অন্তে কোনো স্বরধ্বনির আগমনকে স্বরাগম বলে । স্বরাগম তিন প্রকার —

(i) আদি স্বরাগম — স্পর্ধা > আস্পর্ধা,  স্টেশন > ইষ্টিশন,

(ii) মধ্য স্বরাগম — ভর্সা > ভরসা,  বর্ষা > বরষা,  জন্ম > জনম

(iii) অন্ত্য স্বরাগম — দিশ > দিশা, বেঞ্চ > বেঞ্চি, গিলট > গিল্টি

(খ) স্বরলোপ — উচ্চারণে অসতর্কতার জন্য বা উচ্চারণ কষ্ট লাঘবের জন্য কোনো শব্দের আদিতে, মধ্যে ও অন্তে স্বরধ্বনির লোপ ঘটে । এরূপ পরিবর্তনকে স্বরলোপ বলে । স্বরলোপ তিন প্রকারের । যথা —

(i) আদি স্বরলোপ — অভ্যন্তর >  ভিতর,  উধার > ধার,  অলাবু > লাউ ইত্যাদি ।

(ii) মধ্য স্বরলোপ— ভগিনী > ভগ্নি,  গামোছা > গামছা,  গৃহিণী > গিন্নি

(iii) অন্ত্য স্বরলোপ — রাতি > রাত, আজি > আজ, আশা > আশ

(গ) স্বরভক্তি বা বিপ্রকর্ষ —যে প্রক্রিয়ায় কোনো শব্দের দুটি সংযুক্ত ব্যঞ্জনধ্বনির মধ্যে একটি স্বরধ্বনি এনে ব্যঞ্জনধ্বনি দুটিকে ভেঙে দেওয়া হয়, সেই প্রক্রিয়াকে স্বরভক্তি বা বিপ্রকর্ষ বলে । যেমন— রত্ন > রতন, শক্তি > শকতি,  কর্ম > করম,  জন্ম > জনম ।

(ঘ) স্বরসংগতি —চলিত বা মৌখিক বাংলায় কোনো কোনো পদে একাধিক আলাদা আলাদা স্বরধ্বনি থাকলে উচ্চারণের সময় তারা পরস্পরকে প্রভাবিত করে এবং উচ্চারণগত সংগতি বিধান করে । এই রীতিকে স্বরসংগতি বলে । যেমন— বিলাতি > বিলিতি,  জিলাপি > জিলিপি,  পূজা > পুজো, কুলা > কুলো ইত্যাদি ।

(ঙ) অপিনিহিতি— অপিনিহিতি শব্দটির অর্থ হল পূর্বে সন্নিবেশে বা আগে এসে বসা । বঙ্গালি উপভাষায় এটি প্রধান বৈশিষ্ট্য । কোনো পদের মধ্যে ই-কার বা উ-কার যুক্ত ব্যঞ্জনধ্বনি থাকলে সেই ই-কার বা উ-কারকে সঠিক থানে উচ্চারণ না করে পূর্বে উচ্চারণ করার রীতিকে অপিনিহিতি বলা হয় অপিনিহিতি । যেমন — বলিয়া > বইলা > বলে, কালি > কাইল > কাল, আজি > আইজ > আজ ।

(৪) অভিশ্রুতি— পশ্চিমবঙ্গের রাঢ় উপভাষার প্রধান বৈশিষ্ট্য । অপিনিহিতজাত ই-কার বা উ-কার পূর্ববর্তী স্বরধ্বনির সঙ্গে মিলিত হলে এবং পরবর্তী স্বরধ্বনির পরিবর্তন ঘটলে যে পরিবর্তন হয় তাকে অভিশ্রুতি বলা হয় ।

ধ্বনি ও ধ্বনি পরিবর্তন ছাড়া আরোও পড়ুন-

ফেইসবুকে আপডেট পেতে আমাদের অফিসিয়াল পেইজ ও অফিসিয়াল গ্রুপের সাথে যুক্ত থাকুন। ইউটিউবে পড়াশুনার ভিডিও পেতে আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন। আপডেট পেতে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেল যোগ দিতে পারেন। পোস্টটি শেয়ার করে নিজের টাইমলাইনে রাখতে পারেন।