দক্ষিণ এশিয়ার ভূরাজনীতিতে ভূমিকা রাখছে এডিবি

ফোকাস রাইটিং FOCUS WRITING
Content Protection by DMCA.com

Focus Writing
ভূরাজনীতি
দক্ষিণ এশিয়ার ভূরাজনীতিতে ভূমিকা রাখছে এডিবি

উপ-আঞ্চলিক জোট হিসেবে ১৯৯৬ সালে বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত ও নেপাল নিয়ে গঠন করা হয় ‘সাউথ এশিয়ান গ্রোথ কোয়াড্রাঙ্গল’। পরের বছরই সার্কের অনুমোদন পায় উপ-আঞ্চলিক জোটটি।

প্রতিষ্ঠাতা চার দেশের পক্ষ থেকে সে সময় উপ-আঞ্চলিক উন্নয়নে সহযোগিতার জন্য এডিবির সহযোগিতা চাওয়া হয়। এরই ধারাবাহিকতায় ২০০১ সালে গঠন করা হয় সাসেক প্রোগ্রাম।

২০০১ সালে সার্কভুক্ত চার দেশ বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত ও নেপালকে নিয়ে যাত্রা করে উপ-আঞ্চলিক জোট সাউথ এশিয়ান সাবরিজিওনাল ইকোনমিক কোঅপারেশন (সাসেক)। ২০১৪ সালের মে মাসে এতে যোগ দেয় মালদ্বীপ ও শ্রীলংকা।

২০১৭ সালে জোটের সপ্তম সদস্য দেশ হিসেবে যুক্ত হয় মিয়ানমার। গঠনের পর প্রথম ১৫ বছর সাসেকের কার্যক্রম খুব একটা গতিশীল ছিল না। ২০১৬ সালে সদস্য দেশগুলো গ্রহণ করে সাসেক অপারেশনাল প্ল্যান ২০১৬-২৫।

১০ বছর মেয়াদি এ পরিকল্পনা গ্রহণের মাধ্যমে জোরালো হয়ে ওঠে উপ-আঞ্চলিক জোটটির কার্যক্রম। এক্ষেত্রে অঞ্চলভিত্তিক বিনিয়োগে জোর দেয়া হয় পরিবহন, বাণিজ্য জোরদারকরণ, জ্বালানি ও অর্থনৈতিক করিডোর উন্নয়নের দিকে।

এর পরের বছরই সাসেকভুক্ত দেশগুলোর অর্থমন্ত্রীরা নয়াদিল্লিতে গ্রহণ করেন এক নতুন রূপকল্প ‘সাসেক: পাওয়ারিং এশিয়া ইন দ্য টোয়েন্টি ফার্স্ট সেঞ্চুরি’। প্রাকৃতিক সম্পদ, শিল্প সম্ভাবনা ও কানেক্টিভিটি—এ তিন বিষয়ের ওপর জোর দিয়ে গ্রহণ করা হয় রূপকল্পটি।

এর পর থেকেই সাসেকের অর্থনৈতিক কার্যক্রম জোরালো হয়ে ওঠে। বর্তমানে দক্ষিণ এশিয়াকেন্দ্রিক জোটগুলোর মধ্যে সাসেকের সক্রিয়তা বাড়ছে।

এ ক্রমবর্ধমান সক্রিয়তাকে কাজে লাগিয়ে উপ-আঞ্চলিক জোটটির বৃহত্তম বিনিয়োগ অংশীদার হিসেবে এডিবি এ অঞ্চলের অর্থনীতি, বাণিজ্য এমনকি ভূরাজনীতিতেও বড় ধরনের প্রভাব ফেলতে পারে বলে মনে করছেন পর্যবেক্ষকদের অনেকেই।

এক্ষেত্রে ভারত ও জাপানের সঙ্গে চীনের বৈরিতা বড় নিয়ামক হয়ে ওঠার সম্ভাবনা রয়েছে। বিশেষজ্ঞদের ভাষ্যমতে, সাসেকের মাধ্যমে দক্ষিণ এশিয়ার ভূরাজনীতিতে এডিবিও বড় প্রভাবক হয়ে উঠতে পারে। এ জোটে সবচেয়ে প্রভাবশালী দেশ ভারত।

উপ-আঞ্চলিক জোটটি গড়েও উঠেছে মূলত ভারত ও ভারতকে ঘিরে থাকা দেশগুলোকে নিয়ে। অন্যদিকে এডিবির নেতৃত্ব দিচ্ছে এশিয়ার অর্থনৈতিক পাওয়ারহাউজ জাপান।

দক্ষিণ এশীয় উপ-আঞ্চলিক জোট হলেও সাসেক সচিবালয় অবস্থিত ফিলিপাইনের ম্যানিলায়। সেখানে এডিবির সদর দপ্তরকেই জোটের সচিবালয় হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

কালের পরিক্রমায় সার্ক এখন মৃতপ্রায়। দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক জোটটির কার্যক্রম এখন নেই বললেই চলে। যদিও উপ-আঞ্চলিক জোট সাসেকের সক্রিয়তার মাত্রা এখন অনেক বেশি। এ সক্রিয়তার প্রধান জ্বালানি এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) বিনিয়োগ।

বৃহত্তম বিনিয়োগ অংশীদার হিসেবে সাসেকভুক্ত দেশগুলোর সড়ক ও বন্দর যোগাযোগসহ সার্বিক কানেক্টিভিটিসহ অবকাঠামো ও বাণিজ্য উন্নয়ন খাতে বিপুল বিনিয়োগ করে চলেছে এডিবি।

এডিবির তথ্যমতে, সাসেকে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে পরিবহন, যোগাযোগ ও কানেক্টিভিটি গুরুত্ব পায় সবচেয়ে বেশি। সাসেক অপারেশনাল প্ল্যান ২০১৬-২৫-এর আওতায় বাংলাদেশে চলমান বেশকিছু প্রকল্পে নানা মাত্রায় বিনিয়োগ করছে সংস্থাটি।

সাসেকভুক্ত দেশগুলোয় এডিবি এখন ক্রমেই বিনিয়োগ বাড়িয়ে চলেছে। সংস্থাটির তথ্য বলছে, ২০১৬ সাল পর্যন্ত ১৫ বছরে সাসেকের পোর্টফোলিওতে মোট প্রকল্পের সংখ্যা ছিল ৪১। উপ-আঞ্চলিক জোটটির অন্তর্ভুক্ত বিভিন্ন দেশে গৃহীত এসব প্রকল্পে মোট বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল ৮২৭ কোটি ডলার।

এর মধ্যে এডিবির অর্থায়ন ছিল ৪৮৫ কোটি ডলার। সাসেক অপারেশনাল প্ল্যান ২০১৬-২৫ গ্রহণের তিন বছরের মাথায় সাসেকের প্রকল্পের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৫৫। এসব প্রকল্পের মোট নির্ধারিত ব্যয় ১ হাজার ২৫৩ কোটি ডলার।

এর মধ্যে এডিবির অর্থায়ন অনুমোদন ৭২৩ কোটি ডলার। অন্যদিকে গত বছরের মধ্যে সাসেক অপারেশনাল প্ল্যানের অধীনে প্রস্তাবিত মোট প্রকল্পের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১১২তে। এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে অর্থের প্রয়োজন ৫ হাজার ৮৯০ কোটি ডলার।

এর মধ্যে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়ে ৭৮টিতে মোট ৪ হাজার ৫৮৪ কোটি ডলার অর্থায়ন করা যাবে বলে মনে করছে এডিবি।

অন্যদিকে গত বছরের জুন পর্যন্ত পাওয়া সাসেকের আওতায় জোটভুক্ত দেশগুলোয় বিভিন্ন প্রকল্পে ১ হাজার ৩০০ কোটি ডলারেরও বেশি বিনিয়োগ হয়েছে। এসব প্রকল্পে শীর্ষ অর্থায়নকারী এডিবি।

দক্ষিণ এশিয়ার ভূরাজনীতিতে ভূমিকা রাখছে এডিবি ছাড়া আরও পড়ুনঃ

ফেইসবুকে আপডেট পেতে আমাদের অফিসিয়াল পেইজ ও অফিসিয়াল গ্রুপের সাথে যুক্ত থাকুন। ইউটিউবে পড়াশুনার ভিডিও পেতে আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন। আমাদের সাইট থেকে কপি হয়না তাই পোস্টটি শেয়ার করে নিজের টাইমলাইনে রাখতে পারেন।