কোভিড সংকট মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রীর ছয় দফা প্রস্তাব

ফোকাস রাইটিংঃ করোনা পরবর্তী অর্থনৈতিক বিপর্যয় মোকাবিলা
Content Protection by DMCA.com

কোভিড সংকট মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রীর ছয় দফা প্রস্তাব । ফোকাস রাইটিং এর জন্য খুবই গুরুত্বপুর্ণ একাটা টপিক, দেখে নিন যাতে রিটেন পরীক্ষায় আসলে লিখতে পারেন।

কোভিড সংকট মকাবিলায় ‘সুসমন্বিত রোডম্যাপ’ প্রণয়নে প্রধানমন্ত্রীর ছয় দফা প্রস্তাব। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি সু-সমন্বিত রোডম্যাপ প্রণয়নের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করে জাতিসংঘকে কোভিড-১৯ সংকট মোকাবিলায় অনুঘটকের ভুমিকা পালনের আহ্বান জানিয়েছেন এবং এ লক্ষে ছয় দফা প্রস্তাব পেশ করেছেন। তিনি বলেন এ ক্ষেত্রে জাতিসংঘকে অনুঘটকের ভূমিকা পালন করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কোভিড-১৯ সঙ্কট মোকাবেলার জন্য আমাদের একটি সু-সমন্বিত রোডম্যাপ দরকার। এই সংকট দূর করতে ২০৩০ এর এজেন্ডা, প্যারিস চুক্তি এবং আদ্দিস আবাবা অ্যাকশন এজেন্ডা আমাদের ব্লুপ্রিন্ট হতে পারে।

প্রধানমন্ত্রী যে ছয় দফা প্রস্তাব পেশ করেছেন সেগুলো হচ্ছেঃ

প্রথম প্রস্তাবঃ জি-৭ , জি-২০ , অর্থনৈতিক সহযোগিতা ও উন্নয়ন সংক্রান্ত সংস্থা (ওইসিডি) ভুক্ত দেশগুলো, বহুপাক্ষিক উন্নয়ন ব্যাংক (এমডিবিএস) এবং ইন্টারন্যাশনাল ফিনান্সিয়াল ইন্সটিটিউট (আইএফআইএস) গুলোর বার্ষিক প্রণোদনা , ছাড়ের অর্থ এবং ঋণ মওকুফের পদক্ষেপ বৃদ্ধি করা উচিত। উন্নত অর্থনিতীর দেশগুলোকে অবশ্যই তাঁদের ৭ শতাংশ ওডিএ প্রতিশ্রুতি পূরণ করতে হবে।

দ্বিতীয় প্রস্তাবঃ উন্নয়নশীল দেশগুলোতে আরও বেশি বেসরকারি অর্থ ও বিনিয়োগ সরিয়ে আনা প্রয়োজন । ডিজিটাল বিভাজন বন্ধ করার জন্য বিজ্ঞান, প্রযুক্তি এবং উদ্ভাবনকে আরও কাজে লাগাতে হবে।

তৃতীয় প্রস্তাবঃ কোভিড পরবর্তী চাকরির বাজারের জন্য অভিবাসী শ্রমিকের সহায়তা করে রেমিট্যান্স প্রবাহের নিম্নমুখী প্রবণতা ফিরিয়ে আনতে নীতিগত পদক্ষেপ প্রয়োজন।

চতুর্থ প্রস্তাবঃ উন্নত অর্থনীতির দেশগুলোকে অবশ্যই শুল্কমুক্ত, কোটামুক্ত বাজারে প্রবেশ, প্রযুক্তি সমর্থন এবং উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য আরও প্রবেশযোগ্য অর্থায়নের বিষয়ে তাঁদের অপূর্ণ প্রতিশ্রুতি পূরণ করতে হবে।

পঞ্চম প্রস্তাবঃ কমপক্ষে ২০৩০ সাল নাগাত মহামারীজনিত কারণে কোনও সম্ভাব্য পিছলে পড়া রোধ করতে এলডিসি থেকে উত্তরণ লাভকারী দেশগুলোর জন্য নতুন আন্তর্জাতিক সহায়তা ব্যবস্থা থাকতে হবে।

ষষ্ঠ প্রস্তাবঃ জলবায়ু সংক্রান্ত কার্যক্রম এবং স্থিতিশীলতা পুনরুদ্ধারে অর্থায়নের জন্য আরও জোর প্রচেষ্ঠা করা দরকার।

করোনাভাইরাস মোকাবেলায় বাংলাদেশ সরকারের গৃহীত পদক্ষেপঃ 

⇒ দেশের জিডিপির ৪ দশমিক ৩ শতাংশ সমতুল্য ১৩ দশমিক ২৫ বিলিয়ন ডলারের প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা
⇒ নিয়মিত সামাজিক নিরাপত্তাবলয়ের কর্মসূচিগুলোর আওতা বাড়ানোর পাশাপাশি এই মহামারী চলাকালীন কৃষক , শ্রমিক, শিক্ষার্থী, শিক্ষক, শিল্পী ও সাংবাদিকসহ ৩ কোটির বেশি মানুষকে আর্থিক সহায়তা।

আরও পড়ুনঃ

Focus writing – Functions of commercial Bank

ফেইসবুকে আপডেট পেতে আমাদের অফিসিয়াল পেইজ ও অফিসিয়াল গ্রুপের সাথে যুক্ত থাকুন। ইউটিউবে পড়াশুনার ভিডিও পেতে আমাদের ইউটিউব চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন।

আপনার টাইমলাইনে শেয়ার করতে ফেসবুক আইকনে ক্লিক করুন।